কোরবানি ঈদে হাফ ডজন ছবি

ঈদুল ফিতরে মুক্তি পাওয়া ছবিগুলোর রেশ এখনও কাটেনি। হলে হলে এখনও ছবিগুলো দেখতে দর্শকদের ভিড় দেখা যাচ্ছে। তবে নির্মাতা ও অভিনয় শিল্পীরা কিন্তু চলে যাওয়া ঈদে আটকে নেই। তারা এরই মধ্যে ব্যস্ত ঈদুল আজহার ছবি মুক্তি নিয়ে।

আগামী ঈদে কয়টি ছবি মুক্তি পাবে এর নিশ্চিত হিসাব এখনও পাওয়া যায়নি। তবে সম্ভাব্য কয়েকটি ছবি নিয়ে এরই মধ্যে শুরু হয়েছে আলোচনা। ছবিগুলো হচ্ছে- ‌‘রংবাজ’, ‘অহংকার’, ‘মনে রেখো’। তালিকায় আছে কলকাতার রাজীব বিশ্বাস পরিচালিত নাম চূড়ান্ত না হওয়া একটি যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবি এবং যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘নূর জাহান’ নামের আরেকটি ছবি।

নির্মাণের শুরু থেকেই ‘রংবাজ’ ছবিটি ছিল তুমুল আলোচিত। এই ছবিটি যৌথভাবে প্রযোজনা করেছে বাংলাদেশের রূপরঙ চলচ্চিত্র ও কলকাতার শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস। যদিও চাউর আছে এই ছবিটি শাকিব খানের নিজের প্রযোজিত ছবি। এর পরিচালক প্রথমে ছিলেন শামীম আহমেদ রনি। এরপর চিত্রপরিচালক সমিতি তার নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার পর নির্মাতা হিসেবে হাল ধরেন আবদুল মান্নান। ছবিতে শাকিবের নায়িকা শবনম বুবলী।

ছবিটি গেল রোজার ঈদে মুক্তির কথা ছিলো। কিন্তু একেবারেই শেষ মুহূর্তে এসে জানানো হয় ঈদে ‘রংবাজ’ ছবির মুক্তি দেয়া হবে না। ছবিটি ঈদুল আজাহায় মুক্তি দেয়া হবে এমনটা নিশ্চিত জানা গেছে। শুটিং, এডিটিং ও ডাবিং সবকিছুই শেষ হয়েছে রংবাজ’র। শিগগিরই শুরু হবে এর প্রচারণা।

অন্যদিকে আবদুল মাবুদ কাওসার প্রযোজিত ছবি ‘অহংকার’ ছবিটিও তালিকায় রয়েছে। যার পরিচালক শাহাদত হোসেন লিটন। শাকিব-বুবলী অভিনীত এটি তৃতীয় ছবি। এই ছবিটি গেল বৈশাখ মুক্তির কথা শোনা গেলেও মুক্তি পায়নি। এরপর চাউর উঠেছিল রোজার ঈদে মুক্তি পাবে, কিন্তু শেষে ছবির নির্মাতা লিটন জানিয়েছিলেন- ঈদে যৌথ প্রযোজনার দুই ছবি মুক্তি পাওয়ায় অহংকার মুক্তি দেয়া হবে না। শনিবার জাগো নিউজকে এই নির্মাতা চূড়ান্ত জানালেন, ‘ঈদুল আজহায় ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে।’ আরও বলেন, ‘অহংকার ছবির সবকিছু শেষ। এমনকি সেন্সর সনদও পাওয়া গেছে। সুতরাং মুক্তি দিতে কোনো বাঁধা নেই।’

কোরবানি ঈদে মুক্তির মিছিলে থাকা দেশীয় একক প্রযোজনার শেষ ছবিটি হচ্ছে ওয়াজেদ আলী সুমন পরিচালিত ‌‘মনে রেখো’। এই ছবিটি প্রযোজনা করছে বাংলাদেশের হার্টবিট প্রোডাকশন। গেল মার্চের শেষে ছবিটির শুটিংয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করে চলচ্চিত্র ঐক্যজোট। অভিযোগ ছিল অনিয়ম করে, ওয়ার্ক পারমিট না নিয়ে অবৈধভাবে কলকাতার শিল্পী-টেকনিশিয়ানরা ছবির শুটিং করছে বাংলাদেশে। এরপর সবকিছু দফারফা হলে আবারও শুটিং শুরু হয়।

নির্মাতা জানালেন, এখন বাকি আছে চারটি গানের শুটিং। এই ছবির নির্মাতা ওয়াজেদ আলী সুমন বলেন, ‘চারটি গানের শুটিং বাকি আছে। আগামী ১০ জুলাই থেকে গানের শুটিং শুরু করবো। আমার ইচ্ছে আছে আগামী ঈদুল আজহায় ছবিটি মুক্তি দেয়ার।’ ‘মনে রেখো’ ছবিতে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের নায়িকা মাহি এবং কলকাতার নায়ক বনি সেনগুপ্ত।

সমালোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে আগামী ঈদে ‘নূর জাহান’ নামের একটি ছবি মুক্তি দেওয়া হতে পারে। জাজের সঙ্গে এই ছবিটি কলকাতা থেকে যৌথ প্রযোজনায় রয়েছে কলকাতার পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর প্রতিষ্ঠান রাজ চক্রবর্তী প্রোডাকশনস। সহ প্রযোজক হিসেবে রয়েছে শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের নাম।

এরইমধ্যে এ ছবির চিত্রনাট্য শুটিংয়ের জন্য অনুমোদন পেয়েছে। এ প্রসঙ্গে সেন্সর বোর্ডের সদস্য নাসিরউদ্দিন দিলু বলেন, ‘কয়েকদিন আগে যৌথ প্রযোজনার ছবি হিসেবে ‘নূর জাহান’র চিত্রনাট্য অনুমোদন পেয়েছে। শিগগিরই বাংলাদেশে এ ছবির শুটিং শুরু হবে বলে জেনেছি। ও বাংলাদেশের আব্দুল আজিজ। এ ছবির পরিচালনায় থাকছেন রাজের সহকারী ও চিত্রনাট্যকার অভিমন্যু মুখার্জি ও আব্দুল আজিজ। গতকাল এ ছবির মূল অভিনেতা নবাগত আদৃত ও পূজা চেরির ফার্স্ট লুক পোস্টার জাজ মাল্টিমিডিয়া ও ভারতের শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে দেওয়া হয়। যদিও দুই দেশের পোস্টারে ভিন্নতা রয়েছে। কলকাতা থেকে প্রকাশ হওয়া পোস্টারে কোথাও বাংলাদেশি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও পরিচালকের নাম নেই!

বাংলাদেশের আরাধনা এন্টারপ্রাইজ ও কলকাতার শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের যৌথ প্রযোজনায় আগামী ঈদুল আজহায় মুক্তি পাবে নাম চূড়ান্ত না হওয়া একটি ছবি। যে ছবিতে অভিনয় করেছেন ঢাকার নায়ক শাকিব খান ও কলকাতার দুই নায়িকা সায়ন্তিকা ও নুসরাত জাহান। কলকাতার নির্মাতা রাজীব বিশ্বাস পরিচালিত এই ছবির শুটিং এখন শেষের দিকে। কিছুদিন আগে গণমাধ্যমে শাকিব খান জানান, ‘ছবির ৭০ ভাগের বেশি শুটিং শেষ হয়েছে। আগামী ঈদেই ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে।’

এছাড়া খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ‘পাষাণ’ ছবিটিও মুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে, তবে চূড়ান্ত নয়। এই ছবিতে অভিনয় করেছেন কলকাতার ওম ও বাংলাদেশের মিম। ছবির নির্মাতা সৈকত নাসির বলেছেন, ‘শুধুমাত্র একটি গান বাদে বাকি সবকাজ শুটিং সম্পন্ন হয়েছে। এই গানের শুটিংও চলতি মাসে শেষ করা হবে।’ ছবিটি ঈদে মুক্তি পাবে কি না জানতে চাইলে সৈকত নাসির বলেন, ‘এটা ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ ভাই বলতে পারবেন। আমার পক্ষে বলা মুশকিল।’ আবদুল আজিজ বর্তমানে আমেরিকায় থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি।

ঈদের ছবি হিসেবে মুক্তির সম্ভাব্য তালিকায় ছিলো যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘তুই শুধু আমার’ ছবিটির নামও। তবে এই ছবির পরিচালক অনন্য মামুন জানান, ‘ঈদে মাহি-সোহম অভিনীত ‘তুই শুধু আমার’ ছবিটি মুক্তি পাবে না।

গেল ঈদে যৌথ প্রযোজনার নামের যৌথ প্রতারণার কথা উল্লেখ করে আন্দোলনে নামে এফডিসি ১৬ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। আগামী ঈদেও বেশ কিছু ছবিতে এমনটি হবার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। যার মধ্যে ‘নূর জাহান’, আরাধনার নাম ঠিক না হওয়া ছবিটি উল্লেখযোগ্য। যৌথ প্রযোজনার ছবিতে অনিয়ম বিষয়টি দেখবেন কিনা জানতে চাইলে চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক ফারুক জাগো নিউজকে বলেন, ‘অনিয়ম করে ছবি মুক্তি দেয়া যাবে না। আমরা চলচ্চিত্র পরিবার এ নিয়ে তৎপর আছি। নিয়ম মেনে যৌথ প্রযোজনার ছবি হলে আমাদের কোনো আপত্তি নেই।’

source: rupalialo